নড়াইল জেলা প্রতিনিধি।

নড়াইলে মাদকাসক্ত ভাতিজাকে শাসন করায় কুপিয়ে চাচা মেহেদী মুন্সির পায়ের রগ কেটে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে ভাতিজা ফাহিম হোসেনের বিরুদ্ধে। এছাড়াও শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলাপাথাড়ি কুপিয়ে গুরুত্বর আহত করা হয়েছে নামে একজনকে। মেহেদী চাপুলিয়া গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে। শনিবার (২৭জানুয়ারি) লোহাগড়া উপজেলার চাপুলিয়া গ্রামে হামলার শিকার হন মেহেদী মুন্সি। তাকে নড়াইল সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সংকটাপন্ন্ অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জানাগেছে, নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার কোটাকোল ইউনিয়নের চাপুলিয়া গ্রামের মেহেদী মুন্সির বড় ভাই মাহাবুব মুন্সির ছেলে ফাহিম মাদক সেবনসহ নানা অপকর্ম করে আসছিল। ফাহিমের বখাটেপনায় অতিষ্ট হয়ে শুক্রবার রাতে মেহেদী ভাতিজা ফাহিমকে শাসন করতে গিয়ে লাঠি দিয়ে একটি বাড়ি দেয়। এঘটনার জেরে ফাহিম শনিবার সকালে তার কয়েক সহযোগি নিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মেহেদীর উপর হামলা চালায়। এতে তার বাম পায়ের রগ কেটে দেয়াসহ এলোপাথাড়ি কুপিয়ে শরীরের বিভিন্ন্ স্থানে গুরুতর যখম করে ফেলে রেখে যায়। পরে স্বজনরা গিয়ে মেহেদীকে উদ্ধার করে নড়াইল সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য মেহেদীকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেছে।

এবিষয়ে লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) কাঞ্চন কুমার রায় বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।